রাজধানী

রাজধানী
রাজধানী

ছোটবেলা থেকেই আমরা বিভিন্ন দেশের রাজধানীর নাম মুখস্থ করে থাকি। যেমন- বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা, যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসি, জাপানের রাজধানী টোকিও, ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লী ইত্যাদি। এসব নাম পড়তে গিয়ে একটা সাধারণ প্রশ্ন আসতে পারে রাজধানীগুলোর নাম ঠিক কীভাবে নির্বাচন করা হয়? রাজধানী ছোট বা বড় হোক তার উপর নির্ভর করে রাজধানী গড়ে উঠে না।

রাজধানী শব্দের ইংরেজি ক্যাপিটাল শব্দটি ল্যাটিন ‘ক্যাপিট’ থেকে এসেছ যার অর্থ হল ‘প্রধান’। এছাড়াও ইংরেজি ‘ক্যাপিটাল’ শব্দটি আরো বিবিধ অর্থে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তবে বাংলায় রাজধানী বলতে কোনও রাষ্ট্রের বা দেশের কেন্দ্রীয় শহরকেই বোঝানো হয়ে থাকে। রাজধানী হতে হলে কোনও শহরকে রাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় শহর না হলেও চলে, কিন্তু রাষ্ট্রটির সকল প্রশাসনিক কার্যক্রম উক্ত শহরকে ঘিরেই আবর্তিত হয়ে থাকে।

ঐতিহাসিকভাবে কোনও রাষ্ট্রের প্রধান অর্থনৈতিক শহরটি সে দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহর হিসেবে বিবেচিত হয় এবং দেশের প্রায় সকল অংশই অর্থনৈতিকভাবে স্বচ্ছল উক্ত শহরের উপর নির্ভরশীল থাকে। যেমন, প্রাচীন বাগদাদ, প্রাচীন এথেন্স ও লন্ডনসহ বিভিন্ন শহর ছিল সংশ্লিষ্ট দেশগুলির তৎকালীন অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র। তাই ঐসব শহরেই সকল প্রকার প্রশাসনিক কার্যক্রম কেন্দ্রীভূত ছিল।

সাধারণত একটি দেশের রাজধানীকে কেন্দ্র করে সে দেশের সরকারের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালিত হয়। সরকারের সিংহভাগ প্রতিষ্ঠানের সদর দফতর রাজধানীতে অবস্থিত হয়ে থাকে। এছাড়া রাজধানী শহরগুলো সাধারণত ওই দেশের সাংস্কৃতিক ও ঐতিহাসিক দিক দিয়ে সমৃদ্ধ থাকে।

রাজধানী একটি দেশ, রাজ্য, বা অঞ্চলের কেন্দ্রীয় শহর, যেখান থেকে সেই দেশটির সরকার পরিচালিত হয়। বিশ্বের অনেক ছোট বড় দেশ তাদের রাজধানী শহর সরিয়ে নিয়েছে পরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলা নতুন কোন শহরে। এর মধ্যে রয়েছে ব্রাজিল, কাজাখাস্তান, মালয়েশিয়া, পাকিস্তান, মিয়ানমার বা নাইজেরিয়ার মতো অনেক দেশ। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে রাজধানী স্থানান্তর প্রয়োজন হলেও আমাদের এ দেশটির প্রেক্ষাপটে রাজধানী স্থানান্তর হবে বলে আমার কাছে মনে হয় না। ইন্দোনেশিয়া যদি তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে, সেই তালিকায় এখন তাদের নামও যুক্ত হতে পারে।

সাধারণত রাজধানী শহরেই সংশ্লিষ্ট সরকারের সকল প্রকার সভা ও অধিবেশন ইত্যাদি অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে এবং এটি সাধারণভাবে সংশ্লিষ্ট দেশের সরকার বা আইন দ্বারা সিদ্ধ থাকে। ক্ষেত্রবিশেষে দেশ বা রাজ্যের আইনসভা বিভিন্ন অঞ্চলে বিভক্ত থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *